স্যালাইন খাওয়ার উপকারিতা | Jemon Blog
ঢাকাসোমবার - ৩০ আগস্ট ২০২১
  1. Ecommerce
  2. অনলাইন জব
  3. গল্প জানুন
  4. টেক আপডেট
  5. লাভ স্টোরি
  6. সাকসেস লাইফ
  7. সোস্যাল আপডেট
  8. হেলথ টিপস

স্যালাইন খাওয়ার উপকারিতা

যেমন ব্লগ ডেক্স
আগস্ট ৩০, ২০২১ ৬:৩৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আমরা অনেকেই স্যালাইন এর শরবত হিসেবে খেয়ে থাকি। কিন্তু আমরা জানি না যে স্যালাইনের অনেক উপকারিতা আছে এবং অপকারিতা ও আছে। এখন আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরনের কোম্পানি তৈরি হয়েছে এসব কোম্পানির যেসব স্যালাইন তৈরি করে যা আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর, কারণ তারা ভেজাল দ্রব্য দিয়ে স্যালাইন তৈরি করে এবং এগুলো মানুষ শরবত হিসেবে খেয়ে থাকে এর ফলে শরীরে উপকার এর পরিবর্তে অপকারী দেখা দেয়।

তাই আমাদের স্যালাইন খেতে হলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী স্যালাইন খেতে হবে। এখন আমরা আলোচনা করব স্যালাইন খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে।

আমরা অনেকেই অনেক ধরনের স্যালাইন খেয়ে থাকি। আমরা জানি না যে স্যালাইন আমাদের শরীরের জন্য কি কি উপকার করে। আমরা শুধু স্যালাইন কে শরবত হিসেবেই খেয়ে থাকি, কিন্তু স্যালাইন আমাদের শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
স্যালাইন খাওয়ার মাধ্যমে আমাদের শরীরের পানিস্বল্পতা দূর হয় এবং শরীরের দুর্বলতা দূর হয়।

স্যালাইন আমাদের শরীরে অনেক উপকার করে থাকে। যদি আমরা ভেজাল দ্রব্যের স্যালাইন খেয়ে থাকি তাহলে আমরা তো কোন উপকার পাবো না বরং অনেক অশোকের সম্মুখীন হব। তাই স্যালাইন খেতে হলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ভালো স্যালাইন খেতে হবে যা আমাদের শরীরের উপকার করবে। অনেক কথাই বলে ফেললাম, চলুন এবার আমরা আলোচনা করি স্যালাইন খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে।

আরো পড়ুনঃ  স্বাস্থ্য রক্ষা করার উপায়

ডায়রিয়া দূর করে

যখন কেউ ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয় তখন ডাক্তাররা অধিক পরিমাণে স্যালাইন খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কারণ স্যালাইনে যেসব উপাদান থাকে এগুলো ডায়রিয়া থেকে রক্ষা করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। স্যালাইন ডায়রিয়া রোগের জীবাণু কে ধ্বংস করে এবং অসুখ থেকে মুক্তি দান করে।

পানিস্বল্পতা দূর করে

শরীরের পানিস্বল্পতা দূর করার জন্য ডাক্তাররা স্যালাইন খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। স্যালাইনে থাকা বিদ্যমান উপাদানগুলো শরীরের পানিস্বল্পতা দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যখন মানুষ অনেক পরিশ্রম করে অথবা অনেক কাজ করে রোদের ভেতরে তখন মানুষের শরীর থেকে প্রচুর পরিমাণে ঘাম বের হয়ে যায় ঘামের সাথে।

লবণ বের হয়ে যাওয়ার কারণে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে এবং ক্লান্তি অনুভব হয় একে পানিস্বল্পতা বলে। আর যখন স্যালাইন খাওয়া হয় তখন স্যালাইনের ভিতরে থাকা লবণ শরীরের লবণ এর চাহিদা মিটিয়ে দেয় এবং শরীরকে সতেজ করে তোলে তাই স্যালাইন পানি স্বল্পতা দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

উচ্চ রক্তচাপ কমায়

যখন অনেক পরিশ্রম করা হয় এর ফলে শরীরের রক্ত প্রবাহ গুলি দ্রুতবেগে হতে থাকে। যাকে আমরা উচ্চ রক্তচাপ বলে থাকি। শরীরে অধিক রক্তচাপ হওয়ার কারণে শরীর ক্লান্ত হয়ে পড়ে এবং অনেকে ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে।

আরো পড়ুনঃ  পান্তা ভাত খাওয়ার উপকারিতা

স্যালাইন খাওয়ার মাধ্যমে শরীরের ক্লান্তি দূর করে, লবণের চাহিদা মেটায় এবং শরীরকে শান্ত রাখে। এর ফলে রক্তচাপ কমে যায়। তাই উচ্চ রক্তচাপ কমানোর জন্য ডাক্তাররা ওর স্যালাইন খেতে বলেন। কারণ ওরস্যালাইনে থাকে সোডিয়াম ক্লোরাইড, পটাশিয়াম ক্লোরাইড এবং গ্লুকোজ যা আমাদের শরীরের রক্তের সাথে মিশে উচ্চরক্তচাপ দূর করে এবং স্বাভাবিকভাবে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

শরীরে লবণের ভারসাম্য ঠিক রাখে

মানুষ যখন অধিক পরিমাণে পরিশ্রম করে তখন শরীর থেকে ঘামের মাধ্যমে লবণ বেরিয়ে যায়। শরীরে লবণের গুরুত্ব অপরিসীম, যদি লবণ শরীর থেকে অধিক পরিমাণে বাড়িয়ে যায় তাহলে শরীর অকেজো হতে শুরু করে এবং ক্লান্তি হয়ে যায়। এর ফলে মানুষ হাঁটাচলা করতে পারে না সঠিকভাবে। শরীরে বল থাকে না, দুর্বল লাগে।

শরীর থেকে লবণ বের হয়ে যাওয়ার কারণে এটি হয়ে থাকে। তাই ডাক্তারেরা পরামর্শ দেয় স্যালাইন খাওয়ার। যখন শরীরে লবণের চাহিদা কমে যাবে তখন স্যালাইন খেতে হবে, স্যালাইন খাওয়ার মাধ্যমে স্যালাইন এর ভিতরে থাকা লবণ শরীরে লবণের চাহিদা পূরণ করে এবং শরীরের দুর্বলতা রোধ করে এভাবে শরীরের ভারসাম্য ঠিক রাখে স্যালাইন।

আরো পড়ুনঃ  ব্রণের দাগ দূর করার উপায়

খাবার স্যালাইন বাড়িতে তৈরি করার নিয়ম

আমরা খাবার স্যালাইন বাড়িতেও তৈরি করে নিতে পারি এর জন্য আমাদের প্রথমে কিছুটা গুড় নিতে হবে। তিন আঙ্গুলের মাথায় করে এক চিমটি লবণ এক গ্লাস পানির মধ্যে ছেড়ে দিতে হবে এবং খানিকটা লবণ পানির মধ্যে দিয়ে চামচ দিয়ে নাড়িয়ে নিতে হবে।
এবং এভাবেই আমরা তৈরি করে ফেলতে পারবো খাবার স্যালাইন। লবন ও গুড় পানির মধ্যে মিশিয়ে যে স্যালাইন তৈরি করা হয় একে খাবার স্যালাইন বলে থাকি। আমরা বাজার থেকে যদি স্যালাইন নাও কিনে খায়, তাহলে যদি বাসায় এইভাবে স্যালাইন তৈরি করে খায় তাহলেও আমরা উপকার পাবো শরীরের পানিস্বল্পতা দূর হবে।

এছাড়াও স্যালাইনের অনেক উপকার রয়েছে। শরীর দুর্বলতা, পানিস্বল্পতায় ইত্যাদি অনেক কারণে ডাক্তাররা স্যালাইন খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। রোগীর যখন শরীর একেবারে দুর্বল হয়ে যায় তখন ডাক্তাররা স্যালাইন দিয়ে থাকেন, এর মাধ্যমে শরীর সতেজ হয়ে উঠে। আশা করি আপনারা সবাই বুঝতে পেরেছেন। যদি না বুঝতে পারেন তাহলে আপনার আশেপাশের ডাক্তারের পরামর্শ নিন। ধন্যবাদ।