মাদকদ্রব্য সেবন এর অপকারিতা | Jemon Blog
ঢাকাশনিবার - ২৮ আগস্ট ২০২১
  1. Ecommerce
  2. অনলাইন জব
  3. গল্প জানুন
  4. টেক আপডেট
  5. লাভ স্টোরি
  6. সাকসেস লাইফ
  7. সোস্যাল আপডেট
  8. হেলথ টিপস

মাদকদ্রব্য সেবন এর অপকারিতা

যেমন ব্লগ ডেক্স
আগস্ট ২৮, ২০২১ ৫:০৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আজকাল ছোট-বড় সব মানুষই প্রায় মাদকে আসক্ত হয়ে পড়ছে। মানুষ তাদের নিজেদেরকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। মাদক সম্পর্কে সঠিক ধারণা না থাকার কারণে মানুষ খারাপ দিকে পা বাড়াচ্ছে। দিন দিন মাদকাসক্ত মানুষ বেড়েই চলছে। এখন আমরা আলোচনা করব মাদকদ্রব্য সেবনের অপকারিতা সম্পর্কে।

মানুষ দিন দিন অচেতন হয়ে পড়ছে মাদকাসক্ত হওয়ার কারণে। মাদকের কারণে নানান ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে দেশে, বিদেশে, সমাজে, পরিবারের এবং ব্যক্তিত্বের মাঝে। মাদকের প্রচলন যদি তিন দিন চলতে থাকে তাহলে যুবসমাজ ধ্বংসের দিকে ঝুঁকে পড়বে। এখনই মানুষ অতিমাত্রায় মাদক গ্রহণ করা ধরেছে যদি এটি চলতে থাকে তাহলে অধিকাংশ মানুষই মাদকাসক্তির কারণে মৃত্যুবরণ করে যুব সমাজ ধ্বংস হয়ে যাবে।

মানুষের ভিতরে জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে এবং ধর্মীয় জ্ঞান অর্জন করার মাধ্যমে মাদকাসক্ত থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। সরকারি আইন অনুযায়ী মাদককে সম্পূর্ণভাবে নিষেধ করে দিতে হবে এবং ধর্মীয় জ্ঞানের আলোকে মাদকাসক্তদের বিচার করতে হবে তাহলেই একমাত্র সম্ভব মাদক থেকে যুব সমাজকে রক্ষা করা।

মাদক বলতে আমরা কি বুঝি?

যেসব দ্রব্য এবং অথবা গ্রহণের কারণে মানুষের মস্তিষ্ক অচেতন হয়ে পড়ে এবং বুদ্ধিমত্তার বিকাশ নষ্ট করে এবং এসবের ওপর আসক্ত হয়ে পড়া কি মাদক বলে। মাদকের সংজ্ঞা দিতে গেলে আমরা বলতে পারি যে সব উপাদান গ্রহণ করার মাধ্যমে মানুষ কিছুটা প্রফুল্ল লাভের কারণে নিজেদের মস্তিষ্ককে বিকৃতি করে সেসব উপাদান কেই বলা হয় মাদক।

আরো পড়ুনঃ  স্বপ্নের নায়ক সেই তুমি • পর্ব-২

মাদকের প্রসার ও প্রচার

দিন দিন মাদক সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ছে। দেশে বিদেশে সব জায়গায় মাদক আসক্ত মানুষ দিন দিন বেড়েই চলেছে। মানুষ মাদকে আসক্তির কারণে নিজেদেরকে হাড়িয়ে ফেলেছে। শুধু দেশেই নয় বা দেশেই নয় এটি সারাবিশ্বে ব্যাপক ভাবে প্রচলন শুরু হয়েছে। বিভিন্ন দেশে মাদকাসক্তির বেড়ে চলার কারণে মানুষ দিন দিন অল্প বয়সে মারা যাচ্ছে অথবা বিভিন্ন ধরনের অসুখে আক্রান্ত হচ্ছে।

মাদকের প্রকারভেদ

আমরা বিভিন্ন ধরনের মাদকের নাম শুনেছি। মাদকের অনেক প্রকার রয়েছে, কিছু কিছু মাদক কে পান করা হয়, কিছুকিছু মাদককে আগুন জ্বালিয়ে খাওয়া হয়, অথবা কিছু কিছু মাদক কে ধুয়া আকারে গ্রহণ করা হয়। নিচে কিছু মাদকের নাম দেওয়া হল, যা এখন বাংলাদেশের অধিক পরিমাণে প্রচলন রয়েছে এবং দিন দিন বেড়ে চলেছে মাদক দ্রব্যের কিছু নাম নিচে উল্লেখ করা হলো।

মাদকের নাম

বিভিন্ন ধরনের মাদক রয়েছে এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ইয়াবা, ফেনসিডিল, গাঁজা, হিরোইন, দেশী মদ, বিদেশী মদ ও বিয়ার সিগারেট, তাড়ী, টাপেন্টাডল ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

মাদকের অপকারিতা

মাদক গ্রহণ করার কারণে মানুষজন নিজেদের কি নিজেরা চিনতে পারে না। মানুষ যখন অতিরিক্ত মাদকে আসক্ত হয় তখন তাদের মস্তিষ্ক সঠিকভাবে কাজ করতে পারে না। মস্তিষ্কের ভিতর যেসব শিরা-উপশিরা থাকে অতিরিক্ত মাদক সেবনের কারণে সেসব শিরা-উপশিরায় রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে এবং এর ফলে ব্রেন স্ট্রোক করার কারণে মৃত্যু ঘটতে পারে।

আরো পড়ুনঃ  অনলাইনে উপার্জনের টাকা!

মাদক গ্রহণের কারণে শরীরের ফুসফুস অকেজো হয়ে যেতে পারে।কারণ যেসব ধোয়া আকারে গ্রহণ করা হয় সেসব মাদক এর কারণে ফুসফুসে পানি জমতে পারে। এর ফলে মারাত্মক অশোকের সৃষ্টি হওয়ার কারণে রোগী মারা যেতে পারে। এছাড়াও লিভার কিডনি তে মারাত্মক ধরনের ক্ষতি হতে পারে এছাড়াও যৌনশক্তি হ্রাস পেয়ে যায়। অতিরিক্ত মাদক গ্রহণের কারণে মানুষ আবেগপ্রবণ হয়ে থাকে, এছাড়াও মনমরা হয়ে থাকে।

মাদকের ক্ষতিকর দিক

সামাজিক দক্ষতা কমে যায়। বুক বুক ধরফর শুরু করে। হাত-পা কাঁপে। রক্তচাপ কমে যায়, এছাড়াও কিছু কিছু মাদক আছে যেগুলো সেবন করার মাধ্যমে রক্তচাপ অধিক পরিমানে বেড়ে যায় এরফলে স্ট্রোক করার মাধ্যমে রোগী মারা যায়।মদ পান করার কারণে মানুষের মস্তিষ্কে স্মৃতিশক্তি অকেজো হয়ে যায়। এর ফলে মানুষ মাদকাসক্ত অবস্থায় ভুল বকতে থাকে। কিছু কিছু কথা বলে যে সব কথাগুলো অর্থহীন এবং মানুষ মাদকাসক্ত হওয়ার কারণে নিজেদের ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। এর ফলে অল্প কথাতেই রেগে যায়, না বুঝে একজনের সাথে আরেকজনের গন্ডগোল শুরু হয়। এছাড়াও মাদকাসক্ত হওয়ার কারণে নিজেদের পরিবারে অশান্তি সৃষ্টি করে।

আরো পড়ুনঃ  ফেসবুক পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করার নিয়ম

মাদকাসক্ত হওয়ার কারণ

মানুষ বিভিন্ন কারণে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে। যেমন ,এদের ভেতর প্রধান হচ্ছে পরিবারের অশান্তি, এছাড়াও বন্ধু-বান্ধবের প্ররোচনায় পড়ে অনেকে মাদকাসক্ত হয়ে যায়। এছাড়াও যুবকরা প্রেমে ছ্যাকা খাওয়ার কারনে কষ্ট ভুলতে মাদক গ্রহণ করে থাকে। খারাপ সঙ্গীদের সাথে বেড়ানোর কারণে অনেকেই মাদকাসক্ত হয়ে যায়। পিতা-মাতার বিচ্ছেদের কারণে অনেকেই মাদক গ্রহণ করে থাকে।

প্রতিকার

মাদকের প্রতিকার খুবই জরুরী। এটি যদি চলতে থাকে তাহলে যুব সমাজ ধ্বংস হয়ে যাবে। মাদক ছাড়তে হলে খারাপ সঙ্গীদের সাথে বেড়ানো বন্ধ করতে হবে স্কুল-কলেজে খারাপ বন্ধু বান্ধব ত্যাগ করতে হবে। পরিবারের অশান্তি হলে মাথা ঠাণ্ডা করে সেটি প্রতিকার করতে হবে। এছাড়াও সবচেয়ে বেশি জরুরি হচ্ছে পিতা-মাতা সন্তানের উপর অধিক খেয়াল রাখতে হবে। সবচেয়ে বেশি জরুরি হচ্ছে মাদকাসক্তদের মাঝে ধর্মীয় চেতনা জাগ্রত করতে হবে। এভাবেই আমরা মাদক মুক্ত সমাজ গড়তে পারব ইনশাআল্লাহ।