ভালোবাসার শেষ পরিনতি | Jemon Blog
ঢাকাবৃহস্পতিবার - ২৫ নভেম্বর ২০২১
  1. Ecommerce
  2. অনলাইন জব
  3. গল্প জানুন
  4. টেক আপডেট
  5. লাভ স্টোরি
  6. সাকসেস লাইফ
  7. সোস্যাল আপডেট
  8. হেলথ টিপস

ভালোবাসার শেষ পরিনতি

যেমন ব্লগ ডেক্স
নভেম্বর ২৫, ২০২১ ১:৩৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এটা অন্য রকম একটা অনুভূতি অনুভূতি উপভোগ করার ভাগ্য অন্যরকম হতে হবে তবে এটা সবাই উপভোগ করতে পারে না আবার যারা উপভোগ করতে পারে তারা শেষের দিকে কষ্ট ছাড়া কিছুই পায় না। ভালোবাসার শেষ পরিনতি যদি খারাপ হয়ে থাকে তাহলে এই খারাপের কোন শেষ থাকেনা এটা একদম শেষ করে দেয় মানুষ একটা মানুষ যদি ভালোবাসার চেষ্টা উপভোগ করতে চায় তাহলে তার মৃত্যু ছাড়া কিছুই হয়।

অধিকাংশ মানুষ ভালবাসার চেষ্টা উপভোগ করতে না পারে আত্মহত্যা। ভালোবাসার নমস্কার শক্তি যা মানুষ চাইলেই ও করতে পারে না তবে এর শেষ পরিণতি টা ভালো হয়ে থাকে শেষ পরিণতি অনেকে সহ্য করতে পারেনা। ভালোবাসা কোন অপরাধ নয় তবে ভালোবাসে সেই ভালোবাসার মানুষটিকে ভুলে থাকা তার সাথে কথা না বলে তার সাথে অভিমান করে দীর্ঘ সময় পার করা অনেক অনেক কষ্টের যেটা কেবল মাত্র একজন প্রেমিক বুঝতে পারে ভালোবাসার সময়কালে ঝগড়া অভিমান এগুলো হবে এটাই স্বাভাবিক তবে সেটা যদি দীর্ঘমেয়াদি হয় তাহলে বহুৎ কষ্ট সহ্য করতে হয়।

আরো পড়ুনঃ  লাভ স্টোরি ভালবাসার অন্যতম গল্প ২

ভালোবাসা এটা কোন গল্প নয় এটা অদৃশ্য জাদুর মত আপনার মন নিমিষেই দৌড়িয়ে ফেলতে পারে কিন্তু এটা যদি খুব বেশি হার্ড হয় খুব বেশি কষ্টদায়ক হয় সেক্ষেত্রে আপনাকে নিমিষে শেষ করে দিতে পারে অনেক প্রেমিক রয়েছেন অনেক প্রেমিকা রয়েছেন যারা ভালোবাসার জন্য পাগল হয়ে আজও বনে বনে ছুটছেন আজও ভালোবাসার মানুষটিকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন।

ভালোবাসা এটা অন্যরকম একটা শক্তি এই শক্তির মাঝে কোনো ফাটল কখনও কাজ করে না এই শক্তির মাঝে কোনো ফাটল কাজ করতে আসলে সেই ফাটল নিমিষেই হারিয়ে যায় কিন্তু ভালোবাসা কখনো হারায় না।

ভালোবাসার শেষ পরিনতি!

ভালোবেসে ভুলে যাওয়ার পরে আত্মহত্যা পথ বেছে নেয়া ছাড়া অধিকাংশ মানুষের কিছুই করার থাকেনা। বর্তমান সমাজে অধিকাংশ তরুণ-তরুণী ভালোবাসার পরে আত্মহত্যা করেছে কারণ তারা ভালবাসার পরে ভুলে যাওয়াটা সহ্য করতে পারে না এটা তাদের জন্য অনেক বেশি কষ্টকর হয়ে থাকে তাই তারা আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়।

অধিকাংশ প্রেমিক-প্রেমিক এটাই কারণ তাদের অন্য কোনো পথ থাকে না তারা মনে করে এটাই তা যাকে ভালবাসি তাকে বিছানায় এটা আমাদের সমাজে একটি হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাহলে কি আমরা চাইলেই এই বাড়ি থেকে বের হতে পারব? সম্ভবত না চাইলেই এই ব্যাধি থেকে এই রোগ থেকে বের হওয়া যাবে না এটা খুব গভীর একটা বেরি রোগ।

আরো পড়ুনঃ  মেয়ে পটানোর কয়েকটি টিপস

দেখে থাকবেন কোথাও কোন তরুণ-তরুণীরা করে ঝুলে আছে আত্মহত্যা করেছে কিছু খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করছে লোকসমাজে অনেক রয়েছে এটা কিন্তু নিজ ইচ্ছাতে কেউ কখনো করে না শুধুমাত্র ভালোবাসার টানে তাকে করতে বাধ্য করে। কঠিন একটা পরীক্ষা কে একটা সময় মানুষকে পড়তে হয় সে সময় এটা হচ্ছে ভালোবাসার মানুষ যখন হারিয়ে যায় তখন এই সময়টাতে পড়া মানে জীবনের নিম্নতম একটা পরীক্ষায় পাস করা এই পরীক্ষা থেকে উত্তীর্ণ হওয়া মানে জীবনের বড় একটা পরীক্ষা থেকে পাস করা।

পরীক্ষার নাম অনেক ধরনের রয়েছে তার মধ্যে এটা কিন্তু একটা পরীক্ষা এই পরীক্ষায় কি কি থাকা মানুষের সংখ্যা খুব কম হয়ে থাকে। বর্তমান সমাজে এই পরীক্ষার যথা নুযায়ী অধিকাংশ তরুণ-তরুণী আত্মহত্যার পথ গুলো খুব সহজেই বেছে নেয় তারা মনে করে আত্মহত্যা করলে জীবন সফল এবং আত্মহত্যা করলে আমার জীবন থেকে চলে যাবে কিন্তু না এটা কি কখনো হওয়া এটা কখনো হবার না এটা কেবলমাত্র মানুষের ভুল ভুল ছাড়া কিছুই নয় এই ভুলে অধিকাংশ মানুষ পড়ে আছে।

আরো পড়ুনঃ  লাভ স্টোরি মন কেড়ে নেয় - ১

আমাদের সমাজে এমন ভুল নেই প্রচুর মানুষ করে যাচ্ছেন রীতিমতো তারাই ভুল কে প্রশ্রয় দিচ্ছে বলেই আজকে সমাজে কিছু মানুষ এগুলো করতে দ্বিধাবোধ করছে না। রীতিমত আমাদের সমাজকে সঠিক পথে নিয়ে যেতে এগুলোর বিপক্ষে আমাদের কাজ করতে হবে কিভাবে একটু তরুণ-তরুণীকে সঠিক পথ আলোর পথ দেখানো যায় সেই পথে আমাদের কাজ করতে হবে।

অধিকাংশ সময় দেখবেন তরুণ-তরুণীদের মধ্যে কোনরকম রাগান্বিত কোন কিছু হয়ে থাকলে তারা হাত কাটার কিছু খাবার অথবা আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে থাকে তারা এটা বোঝেনা যে তাদের যে থাকা কতটা জরুরি তা খুব সহজেই ডিসিশন নিয়ে ফেলি আর বাঁচবো না দুনিয়াতে করবো এটা খুবই সহজ কিন্তু পালন করা অনেক বড় কঠিন হয়ে দাঁড়িয়ে থাকে এবং এটা আমাদের সমাজের জন্য একটা অভিশাপ হয়ে থাকে।