কিভাবে কমিউনিকেশন আরো ইম্পুর্ভ করা যায়? | Jemon Blog
ঢাকারবিবার - ৫ ডিসেম্বর ২০২১
  1. Ecommerce
  2. অনলাইন জব
  3. গল্প জানুন
  4. টেক আপডেট
  5. লাভ স্টোরি
  6. সাকসেস লাইফ
  7. সোস্যাল আপডেট
  8. হেলথ টিপস

কিভাবে কমিউনিকেশন আরো ইম্পুর্ভ করা যায়?

যেমন ব্লগ ডেক্স
ডিসেম্বর ৫, ২০২১ ৪:১৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

প্রথম স্টেপ – Listen Attentively

কনভারসেশন করার সময় আমরা সব সময় ভাবি যে কথা বলতে হবে আবার কথা না বললে আরেকজন মানুষ আমার তোমাকে অনেক পছন্দ করতে। তুমি যে তার কথাটা খুব মনোযোগ সহকারে শোনো, তুমি কারো সাথে আড্ডা দিচ্ছে তিনি তোমাকে বলছি তুমি খুব ইন্টারেস্টিং, কি তোমাকে বলছি তুমি খুবই ভালো গুড ম্যান তুমি ভাবছো এটা তো আমি কখনো জানতাম না, এই যে তুমি তাকে ইন্টারেস্ট টা দিচ্ছ সে কিন্তু তোমাকে অলরেডি পছন্দ করছে।

মাঝের মধ্যে সে কিন্তু তোমাকে নিজের কথাগুলো বলতে চাই নিজের কথাগুলো উপস্থাপন করতে চাই তোমার কাছে নিজের টিপসগুলো আরেকজনের কাছে তুলে ধরতে চাই, তুমি যখন সেটা অনেক মনোযোগ দিয়ে সূর্য তখন কিন্তু সে তোমাকে অনেক পছন্দ করে। দেখবে তার কথা শেষ হওয়ার পরে বলবে ওই ছেলেটাকে খুবই ভালো লাগে ওইটাকে খুবই ভালো লাগে এজন্য যে খুবই গুরুত্ব সহকারে কথা শুনে।

মনোযোগ দিয়ে জেরিন এটেনশন তার কথা শুনেছ এজন্যই তোমাকে অনেক পছন্দ করে আর সবসময় মনে রেখো নিজের কথা বলার সময় অন্য কে যেন নানা দেয়া হয় অর্থাৎ অন্যের কথার মধ্যে নিজেকে টেনে না নিয়ে আসা। বেস্ট পয়েন্ট হচ্ছে আমাদের বন্ধু বান্ধব যখন করে একটা আইডিয়া বলে তখন আমি বলে থাকি আমি এটা আগেই জানতাম এটা কখনো বলা যাবে না।

তাদের সঙ্গে তোমার ইন্টারেস্টিং বিষয় টা দেখাও ইন্টারেস্টিং বিষয়টিসহ করাও দেখবে আরো অনেক মানুষ তোমার সাথে কথা বলতে চাইবেন তারা অনেক বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছে।

দ্বিতীয় স্টেপ – Strike A New Conversation

যখন কথাবার্তা শুরু হয় স্পেশালি নতুন কারো সাথে কথাবার্তা শুরু হচ্ছে এসপেশালি আমরা বাঙ্গালীদের জন্য একটু লজ্জা বোধ করি আমরা খুব একটা কথা বলতে চাই না নতুনদের সাথে আবার মানুষের সাথে খুব একটা আড্ডাতে আমরা জানতে চাই না কোন একটা পাশের সিট কে কোন একজনের জন্য রেডি করে রাখি যে আমার বন্ধু বাইরে গেছে এরকম টা বলে (I Always Feel Shy) তাই নতুন কারো সাথে কনভারসেশন অর্থাৎ কথাবার্তা বলার সিস্টেম টা শিখে রাখ।

আরো পড়ুনঃ  আমড়া ও আমলকি খাওয়ার উপকারিতা

যখন কারো সাথে কথা বলবে তখন নিজেকে কিভাবে ইন্টারনেট ইউজ করবে নিজেকে কিভাবে উপস্থাপন করবে নিজের ব্যাপারে ইন্টারেকশন টা খুব ছোট করে রেডি করে এটাকে বলে হচ্ছে (Elevator Pitch) তুমি এখানে তার কথাটা শোনো সে কি করেছে সে কি বলতে চাচ্ছে কিন্তু এখানে এটা না করে আমরা করি হচ্ছে আমি কি করেছি কি করব সেটা বলা নিয়ে ব্যস্ত থাকি সেটা বলা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ি এখানে এত বড় ইন্টারেকশন না দিয়ে তোমার ইন্টারেকশন খুবই ছোট করে ফেল ১০-১৫ সেকেন্ডের মধ্যে সম্পূর্ণ করতে পারো।

এরপর যদি মনে হয় তুমি যার সাথে কথা বলছ সে তোমার ইন্টারনেট শুনতে আরো ইন্টারেস্টিং দেখাচ্ছে সে ক্ষেত্রে তুমি তোমার ইন্টারেকশন টাকে আরো বড় করতে পারো। অর্থাৎ তুমি যদি একটা না অনেক বড় করো অনেক লম্বা করো সে ক্ষেত্রে কিন্তু তোমার এটা শুনতে সে বিরক্ত বোধ করতে পারে। এরকম অনেকেই আছে মাইকে ধরলে ছাড়তে চায় না ঠিক কথা বলা শুরু করলে টা শেষ করতে চায় না এরকমটা করা যাবে না।

আরো পড়ুনঃ  দুধ খাওয়ার উপকারিতা

দ্বিতীয় স্টেপ – Try Not To Win Agreements

কখনো যদি কারো ফ্রিজেজম করতে হয় অথবা তার কোনো ভুল ধরে দিতে হয় অর্থাৎ বার্গার মেথড এর মত। অর্থাৎ আগে কিছু ভালো কথা বলতে হবে এরপর তাকে বলতে হবে আপনি এই জিনিসটা পরিবর্তন করতে পারেন তারপর আরো কথা বলো যাতে তিনি তোমার ভালো কথাগুলো শুনে ইন্টারেস্টিং হয় তার ওই জিনিসটা কে পরিবর্তন করতে সক্ষম হয়। তাহলে তোমার এই কথাটি তিনি নিতে পারে।

তুমি কি শুরুতে ভুল থাকো এটা খারাপ এটা ভালো না একটা হয় না এরা গনিত হয়ে এমন কথা বলাতে এরকম হওয়ার ফলে কনভারসেশন সামনের দিকে আগাতে পারে না। প্রথমে ভালো কথা বলার পরে তাকে বোঝাও তারপর আবার ভালো কথা বল অর্থাৎ বার্গার মেথড ফলো করতে পারো।

চতুর্থ স্টেপ – Do Not Argue In Conversation

আর্গুমেন্ট! আমরা আর কি মাইন্ড দিয়ে কত জিততে চাই কত উপরে উঠতে চাই এটা আসলে বলে বুঝাবার না অর্থাৎ সবাই আর্গুমেন্ট জিততে চায়। মজার ব্যাপার হলো আরকি বেটাছেল কেউ যেতে পারে না এটা কেউ জিতে না অর্থাৎ বাজারে গেছে আর কিভাবে যেতে হয় এটা আরো বেশি হেইট করে (I hate you) বেশি ঘৃণা করে, আর তুমি যদি আর গিভেন হেরে যাও তাহলে তো হেরে গেলে।

কখনো দেখবেন সোশ্যাল মিডিয়াতে দুই পক্ষ ঝগড়া করছে শেষমেশ যে ঝগড়া করলে উনি বলল হ্যাঁ আপনি জিতেছেন আমি যে তিনি এটা কখনো হয় না মূলত ঝগড়া করার সময় একজন আরেকজনকে আরো বেশি ঘৃণা করতে থাকে অতঃপর এভাবে ঘৃণা করে মূলত ঝগড়া শেষ করে কখনো বলা হয় না যে আমি জিতেছি আপনি জিতেছেন আমার ভুল ছিল এটা কখনও স্বীকার হয় না।

আরো পড়ুনঃ  ডিম খাওয়ার উপকারিতা

সর্বোপরি আর্গুমেন্টে জেতার চেষ্টা করুন, কমিউনিকেশনের আর গিভেন থে অবজেক্টিভ কিন্তু যে তা নয় অবজেক্টিভ হল একসাথে কথা বলে কোন একটা জিনিস এর সুরাহা করা। কোন একটা জিনিসের সলিউশন আনা অথবা কোন একটা জিনিসের মিটমাট করে দেয়া। যারা আর গিভেন টু জিততে চায় সেখানে কোনো সুরাহা হয় না সেখানে কোনো ফয়সালা ও হয়না। অবশ্যই মনে রাখবেন আর্গুমেন্ট কখনো যে তার বিষয় না এটা থেকে সলিউশন বের করতে হবে।

পঞ্চম স্টেপ – Recall Happy Memories

আরেকটা কাজ করতে পারো তুমি কারো সাথে যখন দেখা হয় ফোনে কথা হয় অথবা সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে মেসেজ কিংবা টেস্ট করা হয় অলওয়েজ তারা তোমার লাইফে কি ইনফ্যাক্ট রেখেছে কি সহযোগিতা করেছে কি সাপোর্ট করেছে কিংবা কোন ভালো কথা দিয়ে তোমাকে সহযোগিতা করেছে সেটার কথা মনে করিয়ে দাও (Happiness Meter) ওখানে অন্য যে পারসন থাকে অর্থাৎ অন্য যারা থাকে তারা ভালো কিছু অনুভব করতে পারে ভালো কিছু ফেভার করতে পারে।

এতক্ষণ মনে হতে পারে আমরা বড় হয়েছি কিন্তু হ্যাঁ ভাবের জগতে তুমি বড় হয়েছ লম্বা হয়েছে কিন্তু বাস্তবে তুমি ছোট ছোট হয়ে গিয়েছো চেষ্টা করো অন্য পারসন তোমাকে যে ফেভার দিয়ছে সে গুলোকে হাইলাইট করতে তাহলে দেখবে তোমাদের মধ্যে কনভারসেশন টা কমিউনিকেশনে হয়েছে।