ওয়েবসাইট তৈরি করার সরঞ্জাম সমূহ | Jemon Blog
ঢাকাবৃহস্পতিবার - ২৫ নভেম্বর ২০২১
  1. Ecommerce
  2. অনলাইন জব
  3. গল্প জানুন
  4. টেক আপডেট
  5. লাভ স্টোরি
  6. সাকসেস লাইফ
  7. সোস্যাল আপডেট
  8. হেলথ টিপস

ওয়েবসাইট তৈরি করার সরঞ্জাম সমূহ

যেমন ব্লগ ডেক্স
নভেম্বর ২৫, ২০২১ ১:৩২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ওয়েবসাইট হচ্ছে একটি লাইব্রেরী যেখানে আমরা সবকিছু নিজের মতো করে গুছিয়ে গাছিয়ে রাখতে পারি যেমনটা আমরা ইস্কুল ইউনিভার্সিটি কিংবা কলেজের লাইব্রেরীতে দেখে থাকে সেরকম একটি লাইব্রেরী হচ্ছে ওয়েবসইট এখানে আমাদের প্রয়োজনীয় সবকিছু গুছিয়ে রাখতে পারে যে কেউ চাইলে এখানে ভিজিট করে তার প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করতে পারে।

ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য প্রয়োজন হয় ডোমেইন-হোষ্টিং। ডোমেইন হচ্ছে একটি নাম যেমন Google.com, Facebook.com, jemonblog.com এগুলো হচ্ছে ডোমেইন যেটা একটা কোম্পানির নাম। আর হোস্টিং হচ্ছে সংরক্ষিত রাখার স্থান অর্থাৎ আমাদের ফোনে যে সকল ফাইল যেখানে সংরক্ষিত থাকে অর্থাৎ মেমোরি যেখানে আমাদের ফাইলগুলো সংরক্ষিত থাকে এটাকে হোস্টিং বলা হয়ে থাকে।

ডোমেইন-হোষ্টিং খুব সহজেই ক্রয় করা যায় বিভিন্ন কোম্পানি রয়েছে এগুলো বিক্রি করে থাকে তবে তাদের মধ্যে কোম্পানির মধ্যে বিভিন্ন সিস্টেম রয়েছে যেমন ভালো-মন্দ ট্রান্সলেট অবিশ্বাস্য বিষয়গুলো চিন্তা করে কেনা উচিত এবং খুব সহজেই এগুলো কেনা যায় বাংলাদেশ থেকে বিকাশ নগদ রকেট ডেবিট কার্ড এগুলো ব্যবহার করে।

ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য অবশ্যই আপনার অ্যাডভান্স লেভেলের নলেজ থাকতে হবে আর যদি আপনার মত নলেজ না থাকে সে ক্ষেত্রে আপনাকে কোন একটা ডেভলপার হায়ার করতে হবে। ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য পপুলার কয়েকটা প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে, ওয়ার্ডপ্রেস, ব্লগার, ঝুমলা, লারাভেল সহ আরও বিভিন্ন কিছু প্ল্যাটফর্ম যেগুলো মানুষ খুব বেশি ব্যবহার করে থাকে।

আরো পড়ুনঃ  ফেসবুক একাউন্ট খোলার নিয়ম

আরে অধিকাংশ প্ল্যাটফর্ম ব্যবহৃত হচ্ছে ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে আর ওয়াডপ্রেস কোম্পানির লক্ষ লক্ষ অর্থাৎ কয়েক মিলিয়ন ওয়ার্ডপ্রেস থিম রয়েছে যেগুলো ব্যবহার করে আপনার একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন খুব সহজে তাদের এগুলো ব্যবহারের ফলে আপনাকে একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কোন ধরনের কোডিং করতে হচ্ছে না তাদের এই থিমটি সংগ্রহ করে আপনার ব্যাকের থেকে আপলোড করে দিবেন এবং সম্পূর্ণ করে ফেলবেন এতে করে আপনার একটা ওয়েবসাইট সম্পূর্ণভাবে হয়ে যাবে কোন রকম কোডিং ছাড়াই এবং কোনরকম অ্যাডভান্স নলেজ ছাড়াই।

এছাড়া ব্লগার একটা প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যেটা সম্পুর্ণ গুগোল হ্যান্ডেল করে এক প্লাটফর্মে আপনাকে কোন ধরনের হোস্টিং কিনতে হচ্ছে না সম্পূর্ণভাবে গুগলের ফ্রি হোস্টিং আপনি ওয়েবসাইটের রান করাতে পারবেন আর আপনি যদি চান ব্লগারের যে মেইন ডোমেইন আছে তাদের আইনের আওতায় সাবডোমেন ব্যবহার করে ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন খুব সহজে এতে করে আপনার ডোমেইন হোস্টিং কিছুই পারচেস অর্থাৎ কিছুই কিনতে হচ্ছে না যেটা একজন নতুনদের জন্য অনেক বেশি সুবিধা দায়ক।

ওয়েবসাইট তৈরি করা!

এভাবে করে খুব সহজে আপনি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন নিমিষেই। বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে এই এরকম ওয়েবসাইট তৈরি করে লক্ষ লক্ষ টাকা উপার্জন করে নিচ্ছে সাধারণ মানুষ আপনিও তাদের মত একজন ডেভেলপার হতে হলে কিছু কোর্স রয়েছে অনলাইনে যেগুলো শিখে আপনি একজন সম্পূর্ণ ডেভলপার হয়ে কাজ করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ  মাইক্রোফোন কেনার মাধ্যমে ইউটিউবিং শুরু করা

ওয়েবসাইট তৈরি করা অনেক বেশি কষ্টকর কিংবা অনেক সাহায্য প্রয়োজন এমন কিছু না শুধুমাত্র আপনার অ্যাডভান্স নলেজ কোডিং সম্পর্কে ধারণা থাকা ইংলিশ সম্পর্কে মোটামুটি ধারণা থাকা এতে করেই আপনি আশা করি কিংবা যে কোন ধরনের প্লাটফর্মে কাজ করতে পারবেন অ্যাডভান্স লেভেলের কাজগুলো করতে হলে আপনাকে অবশ্যই একটা কিংবা দুইটা কোর্স সম্পন্ন করতে হবে এতে করে আপনি আরো বেশি নলেজ পাবেন এবং আরো বেশি জ্ঞান অর্জন করবেন এবং এতে করে আপনি খুব সহজেই ইনকামের উপার্জন করতে পারবেন।

ওয়েবসাইট তৈরি হয়ে থাকে বিভিন্ন কাজের জন্য ব্লগিং করা নিউজ প্রকাশের জন্য গভারমেন্ট ইনফর্মেশন প্রকাশ করার জন্য ই-কমার্স প্রোডাক্ট বিক্রি করার জন্য সহ বিভিন্ন ধরনের কাজে ওয়েবসাইট ব্যবহৃত হয়ে থাকে ইতিমধ্যে ওয়েবসাইট ব্যবহার করে প্রচুর মানুষ ইনভেস্ট কিংবা বিজনেস চালাচ্ছে ই-কমার্স কোম্পানি রয়েছে যারা ওয়েবসাইট ব্যবহার করে তাদের ব্যবসা চালু রাখছে বিভিন্ন মানুষ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ব্যবসা করে এখনো টিকে আছে তাদের মত আপনিও একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন খুব সহজে।

ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য যে সকল সাহায্য প্রয়োজন সেগুলো উপরে বলা হয়েছে তারপরও আরেকবার প্রতিষ্ঠিত ডোমেইন-হোষ্টিং একজন ডেভেলপার হলেই আপনি একটি সহজে ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারছেন এবং আপনার ওয়েবসাইট থেকে নিজের মতো করে কাস্টমাইজেশন করার জন্য যদি আপনার নিজের অ্যাডভান্স নলেজ না থাকে সে ক্ষেত্রে আপনি একজন ডেভলপারের সহযোগিতা নিয়ে একটা ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ  সঠিক প্রোডাক্ট বাছাই করা

ওয়েবসাইট তৈরি করার পাশাপাশি যদি আপনি চান এন্ড্রয়েড সফটওয়্যার তৈরি করার জন্য সেকত্রে ডেভলপারের সহযোগিতা নিয়ে ওয়েবসাইট এর মতই একটা এন্ড্রয়েড সফটওয়্যার তৈরি করে গুগল প্লে স্টোরে আপলোড করে দিলে সেখান থেকে আপনার ইউজার এরা খুব সহজে আপনাদের সেবাটি উপভোগ করতে পারবে।